×
  • আপডেট টাইম : 10/03/2020 12:12 PM
  • 58 বার পঠিত

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় ইতালিতে কোয়ারেন্টাইনসংশ্লিষ্ট পদক্ষেপ আরও কঠোর করা হয়েছে। বর্তমানে দেশজুড়ে জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। জীবিকা নির্বাহ বা পারিবারিক জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সব ধরনের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কোন্তে এ ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে থাকা মানুষের প্রাণ বাঁচাতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

ইতালিতে করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট রোগ কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। দেশটির নাগরিক সুরক্ষা সংস্থার তথ্য অনুসারে, আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা রাতারাতি বেড়ে গেছে ২৫ শতাংশ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ইতালিতে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪৬৩। চীনের পর ইতালিতেই করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। সরকারি হিসাব অনুযায়ী দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ৯ হাজার ১৭২–এ পৌঁছেছে।

স্থানীয় সময় গতকাল সোমবার ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কোন্তে টেলিভিশনে এক ভাষণ দেন। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস ঠেকাতে ইতালির কিছু ঐতিহ্যবাহী প্রথা পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। এ ক্ষেত্রে প্রথমেই মানুষকে ঘরে থাকতে হবে।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে সংক্রমণের হার বাড়ছে, সেই সঙ্গে মৃত্যুও বাড়ছে। ইতালির ভালোর জন্যই আমাদের কিছু কাজ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এ জন্যই আরও কঠোর পদক্ষেপ আমাদের নিতে হচ্ছে।’ তিনি জানান, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার থেকেই নতুন সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন কার্যকর হবে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে এই করোনাভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে। এরপর তা দক্ষিণ কোরিয়ায় ব্যাপকভাবে ছড়ায়। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৭ হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

গবেষণার তথ্য অনুসারে, করোনাভাইরাস বয়স্ক ব্যক্তি এবং আগে থেকেই অসুস্থ—এমন ব্যক্তিদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। আর বয়স্ক মানুষের বসবাসের দিক দিয়ে ইতালি অন্যতম শীর্ষ দেশ। ইতালিতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যে সবশেষ সেনবাহিনীর চিফ অব স্টাফ আক্রান্ত হয়েছেন। তিনিও কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ১ লাখ ১০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মারা গেছে প্রায় ৩ হাজার ৮০০-রও বেশি মানুষ। এর বেশির ভাগই চীনের। সেখানে এখন আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা কমে এসেছে। চীনের বাইরে ইরানও করোনাভাইরাসে ব্যাপকভাবে আক্রান্ত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা...